৬ দিন পর খুঁজে পেল (অজ্ঞাত রুগি) সন্তানকে,ছেলের হাসপাতালে ভর্তির কথা শুনে অজ্ঞান হয়ে গেল গর্ভ ধারনি মা !

with No Comments

DSC03388

অভাবের সংসার । নুন আনতে পান্তা পুরায় সংসারে ।মা মানুষের বাসায় বুয়া র কাজ করে সংসারের অর্থের যোগান দেয় । ছেলেকে মা পারিবারিক বিষয়ে বকা দিলে রাগ করে বাহির হয়ে যায় তার আদরের সন্তান । মায়ের মন বলে কথা ।মায়ের মন বুজছে না । বুড়া মা ৬ দিন সন্তাঙ্কে সম্ভাব্য জায়গায় হন্য হয়ে খুঁজে বেড়াচ্ছে ।সন্তানকে খুঁজতে সকালে বাহির হত রাতে খুজে না পাওয়ার হতাশা নিয়ে বাসায় ফিরত গর্ভধারিণী মা । সেই সন্তান অজ্ঞাত হয়ে যে হাসপাতালের ফ্লোরে পরে আছে তা কে বা জানত । তেমন এক যুবক। হাসপাতালের ২৮ নং ওয়ার্ডে ২৬.০৬.২০১৬ তারিখ মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়ে ভর্তি আছে ।এখন মোটামুটি কথা বলতে পারছে ।বলতে পেরেছে তার বারির ঠিকানা ।সে পেশায় দিন মজুর ।তার নাম আজিম ,বাসাঃ নাসিরাবাদ গার্লস কলেজ সংলগ্ন সোবহান মিয়াঁর ভাড়া ঘর ।

তার দেওয়া তথ্য মত সুরু হল পরিবারকে খুঁজে পাওয়ার অভিজান । অনেক কষ্টে খুঁজে নিলাম তার বাসা । সর্ব প্রথম দেখা হল তার স্ত্রী র সাথে । জিজ্ঞাস করলাম আজিম কে কি আপনারা চিনেন? প্রথম উত্তর দিতে অনেকটা ভয় পেল । অনেক কিছু ভেবে বলল উনি আমার স্বামী । ৬ দিন আগে বাড়ি থেকে রাগ করে বাহির হয়ে যায় । অবশেষে আমার ক্যামেরায় তুলা ছবি দেখালাম । ছবি দেখে চিনতে পারে সেটা তার প্রানের স্বামী ,আর মা দেখল হারিয়ে যাওয়া সন্তান কে । সাথে সাথে মা অজ্ঞান হয়ে লুটিয়ে পরল মাটিতে ।আর স্ত্রী হতবম্ব হয়ে নিচে বসে পরল । তার পরিবার এখন পথে আছে ।অল্প কিছুক্ষনের মধ্য হাসপাতালে পৌঁছবে ইন্সাল্লাহ ।
এভাবেই খুঁজে পাক হারিয়ে যাওয়া সজনকে ।আর আপনারা সকলে আমার জন্য দোআ করবেন ।আল্লাহ জেন আমাকে মানুষের পাঁশে থেকে কাজ করার সেই তৌফীক দেয় ।আমিন

এই অজ্ঞাত যুবকের পরিচয় মিলছে না

with No Comments

 

আজ ২৬.০৬.২০১৬ তারিখ বিকাল ৪.০০ ঘটিকায় আহত যুবককে হাসপাতালের ২৬ নং ওয়ার্ডের ,এক্স ১৩ নং বিছানায় ভর্তি করানো হয় । বয়স আনুমানিক ২৩ বছর । তেমন কথা বলতে পারছে না ।দু পা এবং মাথায় গুরুতর আঘাত নিয়ে হাস্পাতালে ভর্তি করানো হয় এই যুবককে ।তেমন কথা না বললে ও সে ভোলা জেলার লালমহন থানার তার বাড়ি এই টুকুই বলতে পারছে ।এর বাহিরে আর কিছুই বলতে পারছে না ছেলেটি । তাকে অল্প কিছুক্ষন আগে অপারেশন রুম থেকে বাহির করা হল ।
সকলে যুবকটির জন্য দোআ করবেন ,যাতে তার পরিবারের খোঁজ পাওয়া যায় ।

স্বজনের কাছে পৌঁছাতে গাড়িতে তুলে দেওয়া হল সাবেক অজ্ঞাত(নাম ঃ নগর) এই লোকটিকে ।

with No Comments

 

অজ্ঞাত লোকটি মোটামুটি সুস্থ ।কিন্তু বাড়ির কারো মোবাইল নাম্বার এখনও বলতে পারছে না ।তাই তাকে নোয়াখালীর একটি গাড়ি ভাড়া সহ অন্যান্য খরজ দিয়ে বাসে তুলে দেওয়া হল । আশা রাখি সে বাড়িতে পৌঁছে যাবে ।এই কামনা রইলাম । তার মায়ের কাছে পৌঁছে গেছে এমন কথা শুনার অপেক্ষায় থাকলাম । নগর ফিরে পাক তার সন্তান ,পরিবারকে সেটাই আমার সার্থকতা ।

প্রসঙ্গত ঃ ২৪.০৬.২০১৬ ২৮ নং ওয়ার্ডের ,বিছানা নং ঃ ৬৪ এ তে ভর্তি করানো হয়েছিল । বয়স আনুমানিক ৩২ বছর । অনেক কষ্ট করে দু একটা কথা বলতে চেষ্টা করছে । সে মলম পার্টি দাঁরা আক্রান্ত হয়েছিল। তার ভাষ্য মতে ,তার নাম নাগর । পিতা ঃ কালু মিয়াঁ । পোস্ট অফিস ঃ গুল বাইচার ,বাড়ি ঃ পালুজদার । জেলা ঃ ভোলা । পেশায় ঃ দিন মজুর । লোকটির এলাকার চেয়ারম্যান এর নাম সুজন ,৩ নং ওয়ার্ড এর বাসিন্দা সাবেক অজ্ঞাত নগর ।

Md Nasar's photo.
Md Nasar's photo.

মানসিক আক্রান অজ্ঞাত মহিলা হাসপাতালে ভর্তি

with No Comments

 

নাম ঠিকানা কিছুই বলে না ।কিন্তু কথা বলতে পারে । দেখে মনে হল একটু মেজাজি হবে । ঠিকানা কোথায় ,কি খাবেন এমন প্রস্ন করার সাথে সাথে খুব বিরক্তি নিয়ে আমার সাথে কথা বলল । তা আবার অনেকটা গোছাল না ।২২.০৬.২০১৬ তারিখ সকাল ১০.০০ টায় ২৮ নং ওয়ার্ডের বারান্দায় রাখা হয় মহিলাটিকে ।বয়স আনুমানিক ৪৫-৫০ বছর

অজ্ঞাত লোকটির খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না !

with No Comments

এই মাত্র পাওয়া …………….
মুখে সাদা দাড়ি ।বয়স আনুমানিক ৬৫ বছর ।পরনে সাদা শার্ট । এখনও কথা বলতে পারছে না । মাথায় গুরুতর আঘাত এবং শরীরে বিভিন্ন জায়গায় আঘাত আছে । আজ ২১.০৬.২০১৬ তারিখ দুপুর ১.২০ মিনিটে ,২৮ নং ওয়ার্ডে,বিছানা নং ৩২বি,ভর্তি করা হয়। রাউজান স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে আনা হয় বয়স্ক লোকটিকে ।কে বা কারা তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসে । ইন্সাল্লাহ আল্লাহর রহমতে চিকিৎসা চলছে । কিন্তু একটাই চিন্তা লোকটির স্বজনদের খুঁজে পাবো তো ?

Md Nasar's photo.

অজ্ঞাত ছেলেটি চলে গেল “না ফেরার দেশে “

with No Comments

 

৪ দিন জীবন যুদ্ধে হেরে গেল অজ্ঞাত এই ছেলেটি ।তার শারীরিক অবস্থা শেষ দুই দিন খুব অবনতি হতে থাকে ।গতকাল রাত ১০.০০ টায় ২৮ নং ওয়ার্ডে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে ।বাবা মার বুক খালি করে চলে গেল এই টকবকে জুবক।বাবা মা আদ ও কি জানেন তাদের আদরের সন্তান এখন লাশ ঘরে পড়ে আছে অজ্ঞাত লাশ হয়ে ?কিন্তু সকলের সহযোগিতায় নিয়ে তাকে চেষ্টা করেছিলাম উপজুক্ত চিকিৎসার জন্য।ফাইল নিয়ে ডাক্তার ,নার্স ,এক্সরে করতে নেওয়া ,সিটি স্কেন, করতে ইপিক হেলথ কেয়ার এ ছুটাছুটি ।তার পরিচয় খুঁজে পেতে সংবাদ পত্রে প্রকাশ ।শুধুই একটাই উদ্দেশ্য ,যাতে একটু করে তার পরিবারের ঠিকানাটি বলতে পারে,ঠিকানা খুঁজে পাওয়া।কিন্ত বলা হল না ।কিছুই না বলে চলে গেল এই অজ্ঞাত ছেলেটি । নিজেকে কেন জানি অপরাধী মনে হচ্ছে ।আল্লাহ তার বেহেস্ত নসিব করুক । আমিন

Alhamdulillah,anonymous patient’s father have been found.

with No Comments

 

 

Father is sitting beside injured son.He is gently touching his sons head.While we were talking he (MR.Kobir Ahmed 45) said that his son works for a Mechanical as an Assistant.In that day there were working pressure.So his son BADSAH(13) was late.It was nearly midnight 3.20.While he was coming back home he was severely injured in a road accident.

N,B :last 13.06.2016 ,dawn 4..00am some stranger took him to hospital and get him admitted in Chittagong medical collage hospital .He was severely injured in head .There ware bleeding from his nose and ear .

Thanks to almighty ALLAH BANSAH’s father has found him

আলহামদুলিল্লাহ , অজ্ঞাত ছেলেটির বাবা খুঁজে পেল সন্তান কে ।

with No Comments

 

অজ্ঞাত ছেলেটির খোঁজ মিলেছে । হাসপাতালে সন্তানের পাঁশে এসে বসে আছে বাবা ।পরম আদরে ছেলের মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছেন ।ছেলেটির বাবা আমার সাথে কথা বলতে গিয়ে এক পর্যায়ে কেঁদে কেঁদে বলতে । ছেলেটির নাম বাদশাহ ,পিতাঃ কবির আহমেদ ,বাড়ি ঃ ফটিক ছরি ,চট্টগ্রাম । ছেলেটি মোটর মেকানিক্স এর হেলপার।কাজের খুব চাপ থাকায় গভীর রাত পর্যন্ত কাজ করেছিল ।কাজ শেষ করে বাড়ির উদ্দেশ্য রওয়ানা করে বাদশাহ ।অতঃপর রাত আনুমানিক ৩.২০ মিনিটে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয় ১৩ বছরের বয়সের ছেলেটি ।

প্রসঙ্গত ঃ ১৩.০৬.২০১৬ তারিখ ভোঁর ৪.০০ টায় মাথায় প্রচণ্ড আঘাত নিয়ে হাসপাতালের ভর্তি করানো হয় ছেলেটিকে । তার নাক,কান দিয়েও রক্ত ঝরছিল । ছেলেটিকে হাস্পাতালে ২৮ নং ওয়ার্ডে ভর্তি করানো হয়।

আল্লাহর কাছে সুকরিয়া ছেলেটি তার বাবা ,মা স্বজনকে ফিরে পেয়েছে ।

অজ্ঞাত এই ছেলেটির খোঁজ এখনও মিলছেনা !

with No Comments

 

১৩.০৬.২০১৬ তারিখ ভোঁর ৪.০০ টায় মাথায় প্রচণ্ড আঘাত।নাক কান দিয়েও রক্ত ঝরছে। ছেলেটিকে হাস্পাতালে ২৮ নং ওয়ার্ডে ভর্তি করানো হয়। ছেলেটির বয়স আনুমানিক ১৩ বছর। এখন পর্যন্ত ছেলেটির পরিবারের খোঁজ মিলেনি । ইন্সাল্লাহ চিকিৎসা চলছে ।সকলে দোয়া করবেন যাতে তারাতারি স্বজনের খোঁজ পাওয়া যায় ।

অজ্ঞাত এই লোকটির পরিচয় এখনো মিলেনি

with No Comments

 

মাথায় আঘাত নিয়ে ১০.০৬.২০১৬ তারিখ দুপুর ২.৪০ মিনিটে হাসপাতালের ২৮ নং ওয়ার্ডের ২৬ বি নং বিছানায় রাখা হয় তাকে ।বয়স আনুমানিক ৪৫-৫০ বছর ।নীল রঙের শার্ট এবং পরনে লুঙ্গি ছিল ।গলায় তপছি এবং হাতে বিভিন্ন রকমের চুড়ি আছে । ধারনা করা হচ্ছে মাজারের আসে পাঁশে থাকা হয় লোকটির ।হাসপাতালের বাহির থেকে বিভিন্ন পরীক্ষা করানো হয়েছে ।আল্লাহর রহমতে চিকিৎসা চলছে ।এখনো কথা বলতে পারছে না ।

1 22 23 24 25 26 27 28 29